×
ব্রেকিং নিউজ :
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা গুঞ্জন সাক্সেনার চরিত্রে নিজেকে ভেঙে গড়তে হয়েছে : জাহ্নবী কাপুর চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে বায়ার্ন মিউনিখের কাছে পাত্তাই পেল না বার্সেলোনা ট্রাম্প আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হারলেও নীরবে চলে যাবেন না : হিলারি আজ ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তাঁর স্বপ্ন ও আদর্শের মৃত্যু ঘটাতে পারেনি : প্রধানমন্ত্রী জাতীয় শোক দিবসে বিসিবির কর্মসূচি ষড়যন্ত্রকারীরা দেশের এগিয়ে যাওয়ার পথ বন্ধ করতে চায় : ওবায়দুল কাদের তোমরাই আমার আপনজন : এতিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠাই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন : রাষ্ট্রপতি
  • আপডেট টাইম : 22/07/2020 07:34 PM
  • 82 বার পঠিত

অর্থ পাঁচারের দুটি মামলায় ডেসটিনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. রফিকুল আমিন চিকিৎসার নামে দীর্ঘদিন হাসপাতালে অবস্থানের বিষয়ে হাইকোর্টে আবেদন দেবে দুদক। আজ বুধবার তার জামিন আবেদনের শুনানিতে এ বিষয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হলে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

শুনানিতে দুদক কোসুলি খুরশীদ আলম খান আদালতে বলেন, পত্রিকায় খবর বেরিয়েছে গত বছরের ১১ মার্চ থেকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে আছেন রফিকুল আমিন। এর আগে তিনি দীর্ঘসময় বারডেম হাসপাতালে ছিলেন।

কারা কর্তৃপক্ষ ২৭ বার চিঠি দিলেও তাকে কারাগারে পাঠায়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।করোনাকালে যেখানে মানুষ চিকিৎসা সেবা পেতে হাসপাতালে ভর্তি হতে পারছে না সেখানে এই ধরনের আসামি হাসপাতালের রুম দখল করে আছে কোন শক্তির প্রভাবে।

এ পর্যায়ে আদালত বলেন, চিকিৎসার নামে যদি সে হাসপাতালে অবস্থান করে থাকে তাহলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চেয়ে আদালতে আবেদন দিতে পারেন।

বুধবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের একক ভার্চুয়াল বেঞ্চে এ শুনানি চলে। এ সময় ডেসটিনির এমডি রফিকুল ও চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের জামিন বিষয়ে শুনানি হয়। শুনানি শেষে হাইকোর্ট আসামিদের চারটি জামিন আবেদন নিয়মিত কোর্ট খোলা না হওয়া পর্যন্ত স্ট্যান্ড ওভার রাখেন

প্রসঙ্গত, কয়েক হাজার কোটি টাকা অর্থ পাঁচারের অভিযোগে ডেসটিনির রফিকুল আমিন ও মোহাম্মদ হোসেনের বিরুদ্ধে ২০১২ সালের ৩১ জুলাই দুটি মামলা করে দুদক। এই মামলায় ওই বছরের ১১ অক্টোবর গ্রেপ্তার হন তারা। পরে একাধিকবার জামিন চেয়ে আবেদন করেন আসামিরা। কিন্তু আদালত জামিন দেয়নি। করোনাকালে ভার্চুয়াল কোর্টে মেডিক্যাল গ্রাউন্ড ও দীর্ঘ কারাভোগের কারণ দেখিয়ে আবারে জামিন চান আসামিরা। আদালতে আবেদনকারী পক্ষে আইনজীবী আবদুল মতিন খসরু ও এম. মাইনুল ইসলাম এবং দুদকের পক্ষে মো. খুরশীদ আলম খান শুনানি করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...