Logo
×
ব্রেকিং নিউজ :
রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান খুঁজতে দৃঢ়-প্রতিজ্ঞ অস্ট্রেলিয়া পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তিতে এনজিও’র দেয়া নোটিশ বিষয়ে রিট খারিজ বঙ্গবন্ধুর ছবি বাংলাদেশের ছবি : তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে শিল্পকলা একাডেমী ইউএসএ ইনকের অনুষ্ঠান কাল অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্লাস হবে সপ্তাহে দুদিন তথ্য মন্ত্রীর সভাপতিত্বে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির মিডিয়া, প্রচার ও ডকুমেন্টেশন উপকমিটির সভা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আরও গবেষণা করতে হবে : মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী জিয়া কারাগারে কত মানুষ হত্যা করেছে তা খুঁজে বের করুন: সংসদ সদস্যদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির কাছে জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের বার্ষিক রিপোর্ট পেশ প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ অধিবেশন যোগ দিতে কাল ঢাকা ত্যাগ করবেন
  • আপডেট টাইম : 12/09/2021 04:47 PM
  • 33 বার পঠিত

যুক্তরাষ্ট্রে শনিবার ৯/১১ হামলার ২০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান পালনকালে ঐক্যের ডাক দেয়া হয়েছে।
ভাব গম্ভীর আয়োজনে দিনটিকে স্মরণ করতে গিয়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ এ ঐক্যের ডাক দেন।
নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আল কায়দার হামলায় প্রায় তিন হাজার লোক প্রাণ হারায়। তাদের স্মরণে নিউইয়র্কে গ্রাউন্ড জিরোতে নিহতের স্বজনরা জড়ো হন। আরো অংশ নেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও বিল ক্লিনটন। এ সময়ে ‘আমরা তোমাদের ভালোবাসি, তোমাদের আমরা মিস করি’ এ সংগীতের করুণ সুর বেহালায় বাজানো হয়। স্বজনেরা দাঁড়িয়ে কাঁদতে থাকেন আর নিহতদের নাম উচ্চারণ করেন।
নিরবতার ছয় মুহুর্তের প্রথমটি শুরু হয় ৮টা ৪৬ মিনিটে। এই সময়েই হাইজ্যাক করা প্রথম বিমানটি ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের নর্থ টাওয়ারে হামলা চালায়। বেল বাজানোর মধ্য দিয়ে নিরবতার মুহূর্ত পালন শুরু হয়। সাউথ টাওয়ারে হামলা চালানো হয় ৯টা ৩  মিনিটে। অংশগ্রহণকারীরা তখনও নীরবে দাঁড়িয়ে এ সময়টিকে স্মরণ করেন। পেন্টাগনে হামলা চালানো হয় ৯টা ৩৭ মিনিটে। ওই সময়ে হাইজ্যাক করা বিমানের ১৮৪ যাত্রী প্রাণ হারায়।
এদিকে পেন্টাগণ ও শ্যাঙ্কসভিলেও ৯/১১ স্মরণে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার সময়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন জর্জ বুশ। তিনি বলেন, হামলার পর পর আমেরিকায় যে ঐক্য দেখা গিয়েছিল আজ তা থেকে দেশটি অনেক দূরে।
তিনি বলেন, আমাদের রাজনীতি ভয়, ক্ষোভ আর বিরক্তির নগ্ন আবেদন হয়ে উঠেছে। এতে জাতি ভবিষ্যতে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন।
শ্যাঙ্কসভিলে শনিবার বাইডেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। উদাহরণ তৈরির মতো করে বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে হবে।
এদিকে শেষ মার্কিন সৈন্যের কাবুল ত্যাগের মাত্র দুসপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে স্মরণ অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হলো। ২০০১ সালের এ হামলার পর পরই যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানে বিমান আক্রমণ শুরু করে। এতে তৎকালীন শাসক আল কায়দার আশ্রয়দাতা তালেবান ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয়। কিন্তু মাত্র গত ১৫ আগস্ট তালেবান কাবুলসহ পুরো আফগানিস্তান আবার দখলে নিয়ে সরকার গঠন করেছে।
এ প্রেক্ষাপটে মাত্র আট মাস ধরে ক্ষমতায় থাকা বাইডেন ঘরে বাইরে সমালোচনার মুখে পড়েন। তবে তিনি একাধিকবার কাবুল থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারে তার সিদ্ধান্তের প্রতি যুক্তি দেখিয়ে বলেছেন, অনন্তকাল ধরে এ যুদ্ধ চলতে পারে না।
এদিকে বিশ্ব নেতারা ৯/১১ উপলক্ষে সংহতি প্রকাশ করে বার্তা দিয়েছেন। তারা বলেছেন, হামলাকারীরা পশ্চিমা মূল্যবোধকে ধ্বংস করতে ব্যর্থ হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...