Logo
×
ব্রেকিং নিউজ :
ডাচ-বাংলার সার্ভার সংযোগ পরিবর্তন করে ২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা আত্মসাৎ : গ্রেফতার ৪ রিজার্ভ থেকে ঋণ দিয়ে বাড়তি আয়, মন্দ নয় : অর্থমন্ত্রী নিপুণ রায়কে হাইকোর্টের জামিন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের শর্তসাপেক্ষে প্রমোশন করোনায় সিলেট বিভাগে একদিনে ৭ জনের মৃত্যু বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল আলম মন্টুকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সরকার দেশে আন্তর্জাতিক মানের ভ্যাকসিন ইনষ্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করবে : প্রধানমন্ত্রী স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনে অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত রাষ্ট্রপতির করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলে দ্রুত কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বিএনপি’র মুখে দুর্নীতি বিরোধী বক্তব্য ভুতের মুখে রাম নাম : ওবায়দুল কাদের
  • আপডেট টাইম : 07/06/2021 10:10 PM
  • 41 বার পঠিত

 টানা তিন ম্যাচ জয়ের পর অবশেষে হারের মুখ দেখলো আবাহনী লিমিটেড। আজ বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি-টুয়েন্টি লিগে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে খেলাঘর সমাজ কল্যাণ সমিতির কাছে ৮ রানে হেরেছে আবাহনী।
সাভারের বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্বান্ত নেয় খেলাঘর। ৪ ওভারে দলকে ৪২ রানের সূচনা এনে দেন খেলাঘরের দুই ওপেনার ইমতিয়াজ হোসেন ও রাফসান আল মাহমুদ। এরমধ্যে ১২ বলে ১৮ রান করে ফিরেন রাফসান।
এরপর মেহেদি হাসান মিরাজকে নিয়ে ৪৬ বলে ৬২ রানের জুটি গড়েন ইমতিয়াজ। ২৫ বলে ৩৩ রান করে থামেন মিরাজ। তবে হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন ইমতিয়াজ। ১৬তম ওভারে ব্যক্তিগত ৬৬ রানে আউট হন তিনি। তার ৪৬ বলের ইনিংসে ৬টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন ইমতিয়াজ।
ইমতিয়াজের হাফ-সেঞ্চুরির উপর ভর করেই ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৪ রানের সংগ্রহ পায় খেলাঘর। আবাহনীর দুই স্পিনার আরাফাত সানি-মোসাদ্দেক হোসেন ২টি করে উইকেট নেন।
জয়ের জন্য ১৬৫ রানের লক্ষ্যে শুরুটা ভালো হয়নি আবাহনীর। ৩ ওভারে ১২ রানেই ২ উইকেট হারায় তারা। ওপেনার মুনিম শাহরিয়ার ০ ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ৮ রানে আউট হন।
শুরুর ধাক্কা তৃতীয় উইকেটে সামাল দেন আরেক ওপেনার মোহাম্মদ নাইম ও নাজমুল হোসেন শান্ত। ৫৯ বলে ৮৫ রান যোগ করেন নাইম ও শান্ত। তবে ১৬ রানের ব্যবধানে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে আবাহনী।
লক্ষ্যে ডৌঁছতে শেষ ৩৩ বলে ৫২ রানের প্রয়োজন পড়ে আবাহনীর। দলের সেই প্রয়োজন মেটাতে পারেনি আবাহনীর মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। খেলাঘরের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংএর সামনে দ্রুত রান তুলতে ব্যর্থ হন মোসাদ্দেক ও আফিফ হোসেন।
মোসাদ্দেক ১৯ বলে অপরাজিত ২১ ও আফিফ ১৮ বলে অপরাজিত ২২ রান করেন। খেলাঘরের রনি চৌধুরি-খালেদ আহমেদ ২টি করে উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন ইমতিয়াজ।
৪ খেলায় ৩ জয় ও ১ হারে ৬ পয়েন্ট আবাহনীর। সমানসংখ্যক ম্যাচে ২টি করে জয়-হারে ৪ পয়েন্ট খেলাঘরের।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...