Logo
×
ব্রেকিং নিউজ :
বাল্য বিয়ে রোধে ইউনিয়ন পর্যায়ে সচেতনতামূলক প্রচারণার সুপারিশ স্থায়ী কমিটির সভায় জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে সুইডেন : রাষ্ট্রদূত লন্ডনে অসুস্থ গাফফার চৌধুরীকে ফোন করে খোঁজ-খবর নিলেন রাষ্ট্রপতি বিএনপি নেতারা নিজেদের অক্ষমতা আড়াল করতে পুরনো রেকর্ড বাজিয়ে যাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হবে সন্ত্রাসমুক্ত ও প্রতিযোগিতামূলক : সিইসি হিন্দুদের ওপর হামলা দেশের চেতনার বেদীমূলে হামলা : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা দিতে বারডেম হাসপাতালের সাথে সমঝোতা নবায়ন সরকারের ধারাবাহিকতা আছে বলেই দেশের উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী রেকর্ড জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ আজ করোনায় শনাক্ত হার দশমিক ২৯ শতাংশ কমেছে
  • আপডেট টাইম : 12/10/2021 10:39 PM
  • 36 বার পঠিত

বাংলাদেশের সভাপতিত্বে ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম (সিভিএফ) জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটে মানবাধিকার রক্ষা (এইচআর) বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিবেদক পদ সৃষ্টিকে স্বাগত জানিয়েছে।
গত ৮ অক্টোবর জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের (এইচআরসি) ৪৮তম অধিবেশনে একটি প্রস্তাবের মাধ্যমে বিশেষ প্রতিবেদকের পদ তৈরি করা হয়।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সিভিএফ প্রেসিডেন্টের পক্ষে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বেশী জলবায়ু বিপন্ন দেশগুলোর জনগণের জন্য এটি একটি গর্বিত সাফল্য। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাস্তুচ্যুতির কারণে তাদের অনেকেই সুষ্ঠু জীবনযাপনের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আজ ঢাকায় প্রাপ্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।
সিভিএফ সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশ যে অগ্রাধিকার দিয়ে আসছে তা তৈরি করতে দীর্ঘ মেয়াদী এবং সমালোচনামূলক প্রস্তাবকে সমর্থন করার জন্য তিনি এইচআরসি সদস্যদের ধন্যবাদ জানান।
ড. মোমেন সিভিএফ প্রেসিডেন্ট এবং এর সমস্ত সদস্য রাষ্ট্রকে দক্ষ সমর্থন এবং দরকারী পরামর্শের জন্য সিভিএফ সচিবালয়কে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন।
সিভিএফের ভালনারেবল এর বিষয়ভিত্তিক রাষ্ট্রদূত সায়মা ওয়াজেদ, উচ্চাকাক্সক্ষা বিষয়ভিত্তিক রাষ্ট্রদূত  মোহামেদ নাশিদ এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানি বিষয়ক বিষয়ভিত্তিক রাষ্ট্রদূত তোসি এমপানু এমপানুও জাতিসংঘের এইচআরসি কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। 
নতুন এই সিদ্ধান্তটি বারবার আহ্বান জানানোর ফল। প্রথম ২০১৯ সালে সিভিএফ কর্তৃক শুরু করা হয়েছিল এবং জলবায়ু-ঝুঁকিপূর্ণ দেশ, ছোট দ্বীপ উন্নয়নশীল দেশ, স্বল্পোন্নত দেশ, স্বল্পোন্নত দেশ এবং জলবায়ুু পরিবর্তন সংকটের শীর্ষে থাকা স্থলবেষ্টিত দেশগুলি থেকে সংকট পরিবর্তন ।
৮ অক্টোবর মানবাধিকার কাউন্সিলে গৃহীত প্রস্তাবে সবার জন্য, বিশেষ করে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ জনগণের জন্য জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় অব্যাহত গুরুত্ব আরোপের প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেওয়া হয়। 
এ বছরের মার্চ মাসে ৪৬তম এইচআরসি অধিবেশনে বাংলাদেশের নেতৃত্বে এক যৌথ বিবৃতিতে বিশেষ প্রতিবেদক গঠনের আহ্বান জানানো হয়।
সিভিএফ দেশগুলোতে, ১.২ বিলিয়ন মানুষ সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, নদী ভাঙন, লবনাক্ততা বৃদ্ধি, বন্যা এবং খরাসহ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের কারণে তাদের মৌলিক মানবাধিকার ভোগ করার সুবিধা লাভের ক্ষেত্রে হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে, যা জীবন-জীবিকা নির্বাহ এবং তাদের বসতবাড়ি ও ঐতিহ্যবাহী পেশা থেকে মানুষকে বঞ্চিত করে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...